এমভি সুন্দরবন লঞ্চে যুবককে কুপিয়ে হত্যা -সময় প্রবাহ নিউজ

 

 

 

 

 

আব্দুল্লাহ আল হাসিব, নিউজ ডেস্কঃ
ঢাকা-বরিশাল নৌ রুটের যাত্রীবাহী ‘সুন্দরবন-১১’ লঞ্চের ছাদে এক যুবককে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। লঞ্চ‌টি আজ মঙ্গলবার (১৭ নভেম্বর) ভোরে বরিশাল নদীবন্দরে এসে পৌঁছায়।

সকালে লঞ্চের স্টাফরা পরিষ্কার কাজের জন্য ছাদে গেলে লঞ্চের সাইলেন্সারের (ধোয়া নির্গমনের চিমনি) আড়াল থেকে ওই যুবকের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করে ‘সুন্দরবন-১১’ লঞ্চের সুপারভাইজার মো. সিরাজ জানান, গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় ঢাকা থেকে ছেড়ে মঙ্গলবার সকালে লঞ্চটি বরিশাল এসে পৌঁছায়। যাত্রীরা নেমে যাওয়ার পর কর্মচারীরা লঞ্চ পরিষ্কার করতে গেলে তিন তলার ছাদে ধোয়া নির্গমনের চিমনির আড়ালে ওই যুবকের মরদেহ পাওয়া যায় এবং তৎক্ষনাৎ বিষয়টি পুলিশকে জানানো হয়। পরে নৌ পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে।

রাতে ঢাকা থেকে বরিশালে আসার কোনো এক সময় তাকে হত্যা করা হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

বরিশাল সিআইডি ইন্সপেক্টর নুরুল আলম তালুকদার বলেন, ‘নিহতের কাছ থেকে তার সহকর্মীর ‍আইডি কার্ড পাওয়া যায়। ও‍ই তথ্যের ভিত্তিতে তার সহকর্মীকে শনাক্ত করা হয়। পরে ওই সহকর্মীর কাছ থেকে নিহতের পরিচয় ‍জেনে স্বজনদের খবর দেওয়া হয়েছে। নিহত ব্যক্তির নাম শামীম হাওলাদার। তিনি ঝালকাঠির নলছিটি উপজেলার কুপিলা গ্রামের বাসিন্দা। শামীম রাজধানীতে গার্মেন্টস শ্রমিক ছিলেন।

তিনি আরও জানান, স্বজনরা ‍আসার পর শামীমের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য বরিশাল শের-‍ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হবে। তবে ‍এখন পর্যন্ত ঘাতক শনাক্ত করা যায়নি। ঘাতকের সন্ধানে একাধিক আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কাজ চালিয়ে যাচ্ছে।’

পুলিশের ওসি মো. মামুন জানান, কে বা কারা তাকে হত্যা ক‌রে‌ছে তার ক্লু উদঘাটন হয়‌নি। যুবকের পরনে কালো প্যান্ট আর খয়েরি রংয়ের শার্ট ছিল। যুবকটির বুকে ও পেটে ধারলো অস্ত্রের আঘাত রয়েছে। এ‌তে তার নাড়িভুঁ‌ড়ি বে‌রিয়ে গে‌ছে।

লা‌শের ময়নাতদ‌ন্তের প্র‌ক্রিয়া চল‌ছে। লঞ্চটি ঘাটে আসার আগে-পরে যে কোনও সময় এ হত্যাকাণ্ডটি ঘটতে পারে।

এর আগে গতকাল সোমবার রাত ৯টার দিকে এমভি সুন্দরবন লঞ্চটি প্রায় সাড়ে ৩শ’ যাত্রী নিয়ে বরিশালের উদ্দেশে ঢাকার সদরঘাট ছাড়ে।

Share
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *